খাগড়াছড়িতে জাহেদুল আলমের বিরুদ্ধে তালা ভেঙ্গে দলীয় কার্যালয় দখলের অভিযোগ

khagrachhari-mp-press-brief-pic-1খাগড়াছড়ি নিউজ॥ খাগড়াছড়িতে জাহেদুল আলম কর্তৃক তালা ভেঙ্গে দলীয় কার্যালয় দখল করে নেয়ার অভিযোগ করেছেন জেলা আ’লীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি।

আজ বিকালে (০১ নভেম্বর) জেলা পরিষদ কমিউনিটি কাম ট্রেনিং সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিং-এ এ অভিযোগ করেন।

প্রেস বিফ্রিং-এ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা অভিযোগ করে বলেন, প্রশাসন দলীয় কার্যালয়ের চাবি আমাকে হস্তান্তর করার পরের দিনই তালা ভেঙ্গে কার্যালয় দখল করে জঘন্যতম কাজ করেছেন জাহেদুল আলম।

জাহেদুল আলম এখন আ’লীগের কেউ নয় দাবি করে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা আরও বলেন, গত পৌর নির্বাচনে আ’লীগ দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে তিনি (জাহেদুল আলম)দলের মূল স্রোত থেকে বিচ্যুত হয়েছেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি জেলা আ’লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রণ বিক্রম ত্রিপুরা, জেলা আ’লীগের সহসভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী প্রমূখ।

ব্রিফ্রিং-এ জাহেদুল আলম জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক কিনা প্রশ্ন করা হলে তার জবাবে সাংসদ বলেন, আওয়ামীলীগের ২০তম কেন্দ্রীয় সম্মেলন থেকে আসার পর খাগড়াছড়ি জেলা শহরের কয়েকটি স্থানে কাউন্সিলে উপস্থিত থাকা ছবিসহ পোস্টার, ব্যানার সাঁটিয়ে তাই প্রমাণ করতে চাচ্ছেন জাহেদুল। যদি তিনি (জাহেদুল আলম) জেলা আ’লীগের দলীয় সাধারণ সম্পাদকই হতেন তাহলে নতুন করে পদবীসহ পোস্টার ব্যানার সাঁটানোর কি দরকার ছিলো? দলীয় কার্যালয়ে তালা ভেঙ্গেই বা ঢুকতে হবে কেন?

অপরদিকে জেলা আ’লীগের সভাপতির করা এমন অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে জাহেদুল আলম নিজেকে সাধারণ সম্পাদক দাবি করে বলেন, তাদের করা অভিযোগ শুনেছি। এমন অভিযোগ বিভ্রান্তিকর ও অরাজনৈতিক।

তিনি দলীয় কার্যালয় কারো পৈতৈৃক সম্পত্তি নয় বলে আরও বলেন, দল ও দলীয় নেতাকর্মীদের স্বার্থেই দলীয় কার্যালয়ের তালা খুলেছি। এখানে তালা ভাঙ্গা কিংবা দখলের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা।

প্রসঙ্গত, গত পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে খাগড়াছড়ি পৌরসভায় দলীয় প্রার্থীর বিরোধীতা করার অভিযোগ উঠে জাহেদুল আলমের বিরুদ্ধে। সে অভিযোগের তীর ধরেই জাহেদুল আলমকে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নিয়ে কেন্দ্রে চিঠি দেয় জেলা আ’লীগ। তখন থেকেই আলাদাভাবে দলীয় কর্মসূচি পালন করে আসছে জাহেদুল আলম ও তার সমর্থকরা। চলে উভয়ের মধ্যে পাল্টা-পাল্টি অভিযোগ। এসব অভিযোগ ও পাল্টা কর্মসূচি পালনকে ঘিরে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে ১৪৪ ধারা জারি করে চলতি বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি জেলা আ’লীগের দলীয় কার্যালয়ে তা ঝুলিয়ে দেয় প্রশাসন। হেফাজতে নেয় তালার চাবি। এরপর গত সোমবার (৩১ অক্টোবর) জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের হাতে চাবি হস্তান্তর করা হয়।

খাগড়াছড়ি নিউজ/শাহরিয়ার/মঙ্গলবার, ১ লা নভেম্বর ২০১৬ইং-॥

মতামত...