পার্বত্য চট্টগ্রামে চলমান বৈষম্যপূর্ণ আয়কর নীতি প্রত্যাহারের দাবী

SAMSUNG CAMERA PICTURES

নিজস্ব প্রতিবেদক।। পার্বত্য চট্টগ্রামে চলমান বৈষম্যপূর্ণ আয়কর নীতি প্রত্যাহারের দাবী জানিয়েছেন খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র রফিকুল আলম। তিনি বলেন, সরকার এক দেশে দুই রকম নীতি চালু করেছেন। যার ফলে পার্বত্য চট্টগ্রামে বৈষম্যপূর্ণ আয়কর নীতি চলছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সম্প্রদায়রা যদি আয়কর প্রদান করে তাহলে স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মাণ আরও দ্রুত  হবে। আজ রোববার সকালে খাগড়াছড়িতে দুইদিন ব্যাপী আয়কর মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপলক্ষে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

চট্রগ্রাম কর অঞ্চল-৩’র অতিরক্তি উপ পরিচালক সখিনা জাহানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক মূহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, পুলিশ সুপার মো: মজিদ আলী, চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি সুদর্শন দত্ত ও করদাতাদের পক্ষে সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শানে অালম বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন, আগে মানুষ আয়করের কথা শুনলে ভয়ে পালিয়ে যেত। আর এখন স্বেচ্ছায় আয়কর প্রদান করছে। আয়কর প্রদানে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে চলমান কর্মসূচীর প্রশংসা করেন তিনি।

জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, কে কর দিচ্ছেনা, এটা না দেখে নিজের অবস্থান থেকে আয়কর দিয়ে দেশের সমৃদ্ধির পথে সহযোগীতা করুন।

কর দাতাদের পক্ষে বক্তব্য শানে অালম বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে একটি স্বার্থন্বেষী মহল ঠিকাদারী ও অন্যান্যে ব্যবসার ক্ষেত্রে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সম্প্রদায়ের লাইসেন্স ব্যবহার করে প্রতিবছর সরকারকে আয়কর ফাঁকি দিচ্ছেন। এতে করে সরকার নয়, বরঞ্চ আমরাই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি।

আলোচনা সভা শেষে দু’দিনব্যাপী মেলার উদ্বোধন করেন সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

পরে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে ব্যবসায়ী, ঠিকাদার ও অন্যান্যরা স্বত:স্ফুর্তভাবে অংশগ্রহণ করে মেলার প্রথম দিনে আয়কর প্রদান করেন।

দু’দিনব্যাপী আয়কর মেলা চলবে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

খাগড়াছড়ি নিউজ/এনএম/শাই/রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ইং-।

মতামত...