বন্দর নগরী চট্রগ্রামের ঐতিহাসিক লালদিঘী ময়দান দখলমুক্ত করার আলটিমেটাম ছাত্রলীগের

BSL logoস্বদেশ ডেস্ক : বন্দর নগরী চট্রগ্রামের ঐতিহাসিক লালদিঘীর ময়দান আগামী ১৫ দিনের মধ্যে দখলমুক্ত না করলে আন্দোলনে যাবে মহানগর ছাত্রলীগ।

নগর ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন টিটু বৃহস্পতিবার সকালে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় , ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি ঐতিহাসিক লালদিঘীর ময়দানে অবৈধভাবে গড়ে উঠা কার-মাইক্রো বাসের ষ্ট্যান্ডসহ সকল অবৈধ স্থাপনা আগামী ১৫ দিনের মধ্যে উচ্ছেদ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোরালো আহ্বান জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের , ভাষা আন্দোলন, বাঙালীর স্বাধিকার আদায় আন্দোলনের প্রত্যক্ষ সাক্ষি ঐতিহাসিক লালদিঘীর ময়দান।

এই ময়দান চট্টগ্রামের শত বছরের সংস্কৃতি চর্চার অন্যতম তীর্থস্থান । সরকারী মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের মালিকানাধীন এই লালদিঘীর ময়দান যুগ যুগ ধরে বিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষার্থীসহ নগরীর শিশু-কিশোরদের খেলাধুলা ও বিনোদনের অন্যতম স্থান হিসেবে পরিচিত ।

কিন্তু স্বার্থন্বেষী মহলের হাতে জিম্মি হয়ে ঐতিহাসিক লালদিঘী ময়দান আজ তার স্বরূপ, ইতিহাস, ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। লালদিঘী ময়দানের সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে মাঠের ভেতরে কার-মাইক্রোবাস প্রবেশ করে এই মাঠকে একটি গাড়ির ষ্ট্যান্ড-এ পরিণত করেছে।

ছাত্রলীগের এই দুই নেতা বিবৃতিতে আরো বলেন, এ নিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মহলের প্রতিবাদী সুর লক্ষ্য করা গেলেও যথাযথ কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে দীর্ঘদিন ধরে গড়ে উঠা এই অবৈধ গাড়ির ষ্ট্যান্ড বন্ধে কারো মাথা ব্যথা নেই। এভাবে চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক লালদিঘীর ময়দান ধ্বংস করে আগামী দিনের তরুণ প্রজন্মের ক্রীড়ামোদী মনোভাবকে কোনভাবেই ধ্বংস হতে দেয়া যায় না। সুতরাং ঐতিহাসিক রাজনৈতিক প্রেক্ষপট বিবেচনা সহ সরকারী মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ হিসেবে পরিচিত এই লালদিঘী ময়দানের সকল অবৈধ স্থাপনা আগামী ১৫ দিনের মধ্যে সম্পূর্ণভাবে উচ্ছেদ করা না হলে চট্টগ্রামের সাধারণ ছাত্রসমাজকে সাথে নিয়ে বিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষার্থীর খেলাধুলার স্বার্থ সংরক্ষণ করতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম মহানগর সর্বাত্মক আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবে।

খানিডে/সিনি/শাই/তাং-২৩ জুলাই ২০১৫ইং-।

মতামত...