বর্ণাঢ্য আয়োজনে খাগড়াছড়িতে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ২১তম বর্ষপূর্তি পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক ।। পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি স্বাক্ষরের ২১ বছর পূর্তি আজ। নানা আয়োজনে তিন পার্বত্য জেলায় পালিত হচ্ছে দিবসটি। সকালে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে উপজাতীয় শরণার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে বর্ষপূর্তি উপক্ষ্যে নানান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির অধিকাংশ ধারাই বাস্তবায়িত হয়েছে এবং বাকী ধারাগুলোও বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া চলছে বলে মন্তব্য করেন সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার পুনরায় ক্ষমতায় এলে সহসাই শান্তিচুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করা হবে।

কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন, দীর্ঘ দুই দশকেরও বেশী সময় ধরে চলা ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধে বিভিন্ন সরকার নানাভাবে চেষ্টা করলেও ১৯৯৭ সালের ২-রা ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার চুক্তি স্বাক্ষরে সফলতা পায়। চুক্তি স্বাক্ষরের পর থেকেই বিএনপিসহ আঞ্চলিক অনেক পাহাড়ি সংগঠন এর বিরোধীতা করে আসছে। ষড়যন্ত্রকারীদের তৎপরতা এখনো অব্যাহত আছে। কু-চক্রী মহলদের ষড়যন্ত্রের কারনে চুক্তির অবশিষ্ট ধারাগুলো বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে।এছাড়াও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেন, শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের পরই থেকে পাল্টে যেতে থাকে পাহাড়ি জনপদ। উন্নয়নের ছোঁয়া লাগে পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রতিটি পাড়া মহল্লায়। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ নানা খাতে আওয়ামী লীগ সরকারের তিন মেয়াদের উন্নয়নের কারণে আজ বাংলাদেশের অন্যতম ভ‚খন্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে পার্বত্য জেলাগুলো।

এসময় সেনাবাহিনীর খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হামিদুল হক, ডিজিএফআই কমান্ডার কর্ণেল মো. মাহবুবুর রহমান সিদ্দিকী, বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল গাজী মোহাম্মদ সাজ্জাদ, জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার মোহা. আহমার উজ্জামানসহ বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পরে জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। পাহাড়ের বসবাসরত সকল সম্প্রদায়ের তরুণ-তরুণীরা ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে শোভাযাত্রায় অংশ নেয়। শোভাযাত্রাটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পৌর টাউন হল প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করে। এছাড়াও আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা আয়োজনে জেলা সদর সহ সবকটি উপজেলায় পালিত হচ্ছে চুক্তির ২১তম বর্ষপূর্তি।

একই দিন বিকালে সন্ধ্যায় চুক্তি পরবর্তী শান্তিবাহিনীর অস্ত্র সমর্পণস্থল খাগড়াছড়ি স্টেডিয়ামে সেনা রিজিয়ন ও জেলা পরিষদের যৌথ উদ্যোগে সম্প্রীতির কনসার্টে দর্শক মাতাবেন দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড সোলসের পার্থ বড়ুয়া, ক্লোজআপ ওয়ান তারকা শেফালী সারগাম ও রাঙামাটির তিশা দেওয়ানসহ স্থানীয় শিল্পীরা। থাকছে সম্প্রীতি নৃত্য, ফানুস ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলনসহ আকাশ রাঙ্গানো আতশবাজি। খাগড়াছড়ি নিউজ/এস/রবিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০১৮ইং।।

মতামত...