বান্দরবানে সাঙ্গু নদীর পাড়ের বিশাল এলাকাজুড়ে মাটিতে ফাটল; ৫০টিরও বেশি বসতবাড়ি নদীতে ভেঙে পড়েছে

News 1 pic-1মো: শাফায়েত হোসেন, বান্দরবান||
বান্দরবান শহরের মধ্যমপাড়া এলাকায় সাঙ্গু নদীর পাড়ে বিশাল এলাকাজুড়ে মাটি ডেবে ওই এলাকার প্রায় ৫০টিরও বেশি বসতবাড়ি নদীতে ভেঙে পড়েছে। এতে হুমকির মুখে রয়েছে সেখানকার অনেক পরিবার।

স্থানীয়রা জানান, গতকাল “রোববার মধ্যরাত থেকে মাটিতে ফাটল দেখা দেয়। ভোররাতে নদীর তীরের প্রায় ৫০টিরও বেশি বসতঘর ভেঙে পড়ে যায়। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি। এ ঘটনায় এলাকার লোকজনদের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে। নিরাপদ আশ্রয়ে সরে গেছে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলো। অনেকে আশ্রয় নিয়েছে স্কুলে। গত কয়েকদিনের প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে এবার জেলার সাঙ্গু ও মাতামুহুরী নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। রোববার থেকে নদীর পানি কমতে থাকায়  বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক ভাঙন দেখা দেয়। এছাড়া অনেকস্থানে মাটি দেবে গিয়ে ফাটলের সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, তৃতীয় দফায় বন্যায় নদীর পাড়ের মাটি নরম হয়ে যাওয়ায় ফাটল দেখা দিয়েছে। এতে করে নদীর তীরবর্তী কাঁচা বসতঘরগুলো ভেঙে পড়েছে। নদীর পাড়ের লোকজনদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে না নিলে প্রাণহানির মত ঘটনাও ঘটতে পারে।

এদিকে বান্দরবানের বন্যা পরিস্থিতি আরো উন্নতি হয়েছে। নেমে গেছে প­াবিত হওয়া নিচু এলাকার পানি। বন্যায় শহরের আটটি আশ্রয় কেন্দ্রে আাশ্রয় নেয়া পরিবারগুলো ফিরতে শুরু করেছে তাদের নিজ নিজ বসতঘরে। জেলা সদরের সাথে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক হলেও রাস্তা ভেঙে যাওয়ায় জেলার রুমা ও থানছি উপজেলার সাথে সড়ক যোগাযোগ এখনও বন্ধ রয়েছে।

সেনাবাহিনীর প্রকৌশল বিভাগ ১৬, ১৭ ও ১৯ ইসিবির সদস্যরা সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু করতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। কয়েকদিনের মধ্যেই থানছি-আলীকদম সড়কটি চালু করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

খাগড়াছড়ি নিউজ/স্বদেশ ডেস্ক/শাহো/শাই/তাং-০৩ আগস্ট ২০১৫ইং।।

মতামত...